শিরোনাম
প্রথম পাতা / আদিবাসী / ফরমি সুচিয়াং আহত কেন জবাব চাই?

ফরমি সুচিয়াং আহত কেন জবাব চাই?

পাভেল পার্থ : দেশে বনভূমি সুরক্ষার দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান বনবিভাগ। সরকারি হিসাবে দেশে ১১ ভাগ বন আছে, যদিও থাকা দরকার ২৫ ভাগ। বনবিভাগের অনেক উল্লেখযোগ্য এবং অবিস্মরণীয় কাজ আছে। এখনো ঢাল তলোয়ার ছাড়া ‘নিধিরাম সর্দার’ বনপ্রহরীরা সুন্দরবন থেকে শুরু করে পাহাড়ি বনগুলোর দেখভাল করেন অনেকটা নিজের জীবন দিয়েই। বনবিভাগের অনেক কর্মচারী-কর্মকর্তাদের খুব কাছ থেকে দেখেছি বন্যপ্রাণীর প্রতি কত বিস্ময়কর ভালোবাসা তাদের, বনের প্রতি তারা কতোটা নিবেদিত। কক্সবাজারের শিলখালী গর্জনবৃক্ষ কেটে একটা রাস্তা তৈরি করতে চেয়েছিল স্থানীয় সরকার বিভাগ, শিলখালী বনবীট কর্মকর্তা বন কেটে সেই রাস্তা বানাতে দেননি। বন বাঁচাতে লড়েছিলেন। কিন্তু এই ভালোবাসা, দায়িত্বশীলতা আর দায়বোধ বনবিভাগের সবার মাঝে নেই। তাই সর্বোচ্চ বনকর্মকর্তা হয়েও কেউ কেউ ওসমান গণির মতো বনের পর বন কেটে অবৈধ টাকা মজুত করেছিলেন। বনবিভাগের অনেক কর্মকর্তাদের গাছপাচার, বন্যপ্রাণী বাণিজ্য, বনবিনাশের খবর প্রায় প্রতিদিন গণমাধ্যমে প্রচারিত হয়। এমনকি বনবিভাগ স্থানীয় ফরেস্ট ভিলেজার, বনবাসী, আদিবাসীদের নামে হরহামেশাই মিথ্যা বনমামলা দেয়, অত্যাচার-নিপীড়ন করেন। খুন-ধর্ষণ আর লুটতরাজের সাথেও জড়িয়ে আছে অনেক বনকর্মকর্তার নাম। টাঙ্গাইলে মধুপুর শালবনে বিনে নকরেককে বনবিভাগ পেছন থেকে গুলি করে হত্যা করেছিল। শিশিলিয়া ¯œালকে গুলিতে ঝাঁঝরা করে দিয়েছিল। শিশিলিয়ার অপরাধ ছিল শালবনের ঝরাপাতা কুড়ানো। মধুপুরে পীরনে ¯œাল হত্যা থেকে শুরু করে নেত্রকোণার মেনকীফান্দায় অজিত রিছিলের ওপর অত্যাচার সবই করেছিল বনবিভাগ। কাপ্তাইয়ে জন্ম থেকে দুই হাত না থাকা ব্যক্তির নামে যেমন গাছ কাটার বনমামলা করেছে বনবিভাগ, একইভাবে কারো বিরুদ্ধে একশর বেশিও বনমামলা করেছে। বনবিভাগের কিছু কর্মকর্তার জন্যই বারবার দেশের এই গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানটির সকল সাফল্য বারবার ¤øান হয়ে যায়। বনবিভাগের কিছু দায়িত্বহীন, কর্তব্যবিমুখ, বনবিনাশী কর্মকর্তার জন্যই বারবার বনবিভাগ জনমানুষের কাছে এক ‘অবিশ্বাসী’, ‘দুর্নীতিগ্রস্থ’ এবং ‘নির্যাতক’ প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিশেষত জনমনস্তত্বে বনবিভাগ সম্পর্কে মানুষের কী ধারণা এবং দৃষ্টিভঙ্গি এটি কখনোই আমরা আন্দাজ করতে চাইনি। অথচ কিছু মানুষের কান্ডজ্ঞানহীন দুর্নীতি আর দায়িত্বহীনতার জন্য একটি ঐতিহাসিক প্রতিষ্ঠান কোনোভাবেই ‘কলংকিত’ হতে পারে না। কিন্তু বনবিভাগ কোনোভাবেই এসব প্রশ্নকে এড়িয়ে যেতে পারে না, এসব গøানি ঢেকে ফেলতে পারে না। নিরপেক্ষ তদন্ত, বিচার এবং সর্বোপরি বনবান্ধব অনুশীলন ও চর্চাকে বাড়িয়ে আরো বেশি মানুষকে বন সুরক্ষায় যুক্ত করার ভেতর দিয়ে বনবিভাগ সত্যিকারের বনমুখী ও জনমুখী প্রতিষ্ঠান হয়ে গড়ে ওঠতে পারে। এতসব লুটতরাজ, দুর্নীতি কী আহাজারির ভেতর এখনো বনবিভাগের কোনো না কোনো বনপ্রহরী কী কর্মকর্তা রাতবিরেতে গাছকাটার শব্দে জেগে ওঠেন, প্রাণ হাতে ছুটে যান। একটা বুটজুতা, টর্চলাইট, রেইনকোট কী ছাতাও নেই সুন্দরবনে কত বনপ্রহরীকে দেখেছি ঝড়-ঝঞ্জার ভেতরও একটা ছোট নৌকায় টহল দিতে। বনবিভাগের এই ভালোবাসার প্রতি মানুষের বিশ্বাস ও শ্রদ্ধা আছে। এই শক্তি নিয়েই নতুন করে দাঁড়াক দরদী ও দায়িত্বশীল এক বনবিভাগ। গণমাধ্যমে প্রকাশিত একটি ঘটনায় আবারো ¤øান হয়েছে বনবিভাগের মুখ। মৌলভীবাজারের রাজকান্দি রেঞ্জ স্থানীয় ফরেস্ট ভিলেজারকে বিনাঅপরাধে নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করেছেন। পাশাপাশি উক্ত রেঞ্জের কুরমা বনবীটের কর্মকর্তা করোনা মহামারীকালের সরকারি এবং স্থানীয়দের স্বাস্থ্যবিধি চূড়ান্তভাবে লংঘন করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে ২০ এপ্রিল ২০২১ তারিখে। যখন ২২ এপ্রিল বিশ্ব ধরিত্রী দিবস পালনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে বিশ্ব। এবারের ধরিত্রী দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারিত হয়েছে ‘আসুন পৃথিবীকে পুনরুদ্ধার করি’। প্রশ্ন হলো কাদের নিয়ে এই পুনরুদ্ধার কাজ শুরু হবে? বনবিভাগের পেটোয়া কর্মকর্তাদের দিয়ে কী কোনো পুনরুদ্ধার কাজ করা সম্ভব? নাকি যাকে পিটিয়ে জখম করা হলো সেই পরিবেশবন্ধু তরুণ? করোনা মহামারিকালেই আমাদের এসব প্রশ্নের ফায়সালা করতে হবে। পৃথিবী পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে কাদের নিয়ে দাঁড়াবে আগামীর বাংলাদেশ এই মহামারিকালই তা নির্ধারণের বিশেষ সময়।

কী ঘটেছে কুরমায়?
দেশে যে ক্ষয়িষ্ণু মিশ্র বর্ষারণ্যগুলো টিকে আছে তার ভেতর রাজকান্দি গুরুত্বপূর্ণ। গণমাধ্যম, পর্যটন, ভ্রমণ কিংবা যোগাযোগ নানা কারণে লাউয়াছড়া, সাতছড়ি, রেমা-কালেঙ্গা, খাদিম, রাতারগুল যতোটা পরিচিত রাজকান্দি ততোটা নয়। চাবাগান এবং সীমান্তবর্তী আদিবাসী গ্রামগুলির কারণে এখানে প্রাকৃতিক ও সাংষ্কৃতিক বৈচিত্র্য অনন্য। সিলেট বিভাগের জনবসতির ভেতর খাসি জনগোষ্ঠী সচরাচর বনবিভাগ, চাবাগান, সরকারি খাসজমি ইজারা নিয়ে বসবাস করেন। খাসিভাষায় এসব পাহাড়িটিলার গ্রামকে পুঞ্জি বলে। শতবর্ষী প্রাচীন এসব গ্রামের বৈশিষ্ট্য হলো এসব গ্রাম গড়ে ওঠে প্রাচীন বৃক্ষসমৃদ্ধ টিলাবনভূমিতে। কারণ খাসিরা গাছপান, গোলমরিচ, পিপুল, মিশ্র ফলবাগান, আদা-হলুদ, ঔষধি গাছের জুম-বাগান করেন যা কোনো চিরচেনা সমতল অঞ্চলে সম্ভব নয়। খাসি জীবনধারা এবং পরিবেশগত মূল্যবোধের কারণেই তাদের চারপাশের বনভূমি রক্ষা করতে হয়। ১৯৫০ সনের প্রজাস্বত্ত¡ আইনের মাধ্যমে সকল বনভূমি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন হলে খাসি গ্রামগুলি বনবিভাগ বা চাবাগানের অধীন হয়ে যায়। বনবিভাগ বনের জায়গায় বসবাসকারীদের নাম দেয় ‘ফরেস্ট ভিলেজার’। বনজসম্পদ পাহারা ও বনরক্ষার নিমিত্তে এরা বিনাবতেনে কাজ করেন। মৌলভীবাজারের রাজকান্দি রেঞ্জের কুরমা বনবীটের জায়গায় গড়ে ওঠা কুরমা খাসিপুঞ্জি এমনি এক ফরেস্ট ভিলেজার বসতি। প্রায় ৫০ পরিবার খাসিদের বসবাস এখানে। সোনি সুচিয়াং এবং পি রিয়াং খংলার ছেলে ফরমি সুচিয়াংয়ের জুন্ম এই পুঞ্জিতেই। এখন বয়স প্রায় আটাশ। ঘটনার দিন রাজকান্দি রেঞ্জের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম, কুরমা বনবিটের নবনিযুক্ত বিটকর্মকর্তা মো. রাজ্জাক আহমেদসহ, বনকর্মী মা. জহির মিয়া এবং মো. ফোরকান মিয়া কুরমা পুঞ্জির ফরমিদের পানজুমে জোরপূর্বক প্রবেশ করেন। ফরমিরা জানান করোনাকালে বিশেষ লকডাউন বিধি থাকায় এসময় তারা বহিরাগত কাউকেই পানজুমে প্রবেশ করতে দেন না। বনবিভাগের লোকজন করোনাকালীন এই স্বাস্থ্যবিধিকে কোনো তোয়াক্কা না করে ফরমিকে বেঁধে লাঠি দিয়ে পেটান। তারা কুরমা বনবিটের একটি কক্ষে আটকে রেখে তাকে নির্যাতন করেন। দুটি শিশু এটি দেখে পুঞ্জিতে খবর দেয় এবং নির্যাতিতের মামা ডালিম সুচিয়াং এবং পুঞ্জির সহকারী হেডম্যান বনবিভাগের অফিসে এসে মুচলেকা দিয়ে আহতকে ছাড়িয়ে নিয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। গণমাধ্যমের কাছে স্থানীয় ৯নং ইসলামপুর ইউনিয়নর চেয়ারম্যান আবদুল হান্নান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেছেন, এভাবে কাউকে মারধর করা ঠিক হয়নি। রাজকান্দি রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম গণমাধ্যমে জানান, নির্যাতিত যুবকটি বনের গাছগাছালি ছাঁটাই করছিল এজন্য তাকে শাসন করা হয়েছে (সূত্র: দৈনিক দেশ রূপান্তর, একুশে টেলিভিশন, বিডিনিউজ২৪ডটকম/২১ এপ্রিল ২০২১)। এ ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি। কেবল ভীষণভাবে আহত ফরমি যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। মোবাইলে কথা বলার সময় ফরমি আমাকে বলেছে, আমি আর কথা বলতে পারতেছি না, আমার মাথায় খুব যন্ত্রণা হচ্ছে। ফরমির ওপর বনবিভাগের এমন নিদারুণ অবিচার এই মহামারিকালে আমাদের কী জানান দিলো? বিশেষ করে এই ধরিত্রী দিবসের আয়োজনের দিনে? কেন বনবিভাগ জোর করে করোনার সময় একটি খাসিপুঞ্জিতে ঢুকতে গেলেন? কেন বনবিভাগ জানবেন না খাসিদের মহামারিকালীন লোকায়ত লকডাউন পদ্ধতিগুলো? এছাড়া খাসিদের পানজুমগুলো তো সবসময়ের জন্যই খুব যতেœ রাখা হয়। অধিকাংশ খাসিপুঞ্জিতে তাই সামনে সাইনবোর্ড থাকে ‘বহিরাগতের প্রবেশ নিষেধ’। যে কর্মকর্তারা এই কান্ড কুরমায় ঘটনালেন অবশ্যই তারা বাংলাদেশের মানুষ। এসব স্বাস্থ্যগত ও প্রতিবেশগত বিধিবিধান তাদের জানার কথা। একজন বনকর্মকর্তা বন, বন্যপ্রাণী, পরিবেশ ও প্রাণবৈচিত্র্য সংশ্লিষ্ট আইন, নীতি, প্রজ্ঞাপন ও ঘোষণা গুলো খুব মনোযোগ দিয়ে পড়েেেছন এবং তা পালন করছেন বলেই আমরা বিশ্বাস করি। কিন্তু কুরমার এই সাম্প্রতিক ঘটনায় তারা প্রমাণ করলেন তারা দেশের বন সংক্রান্ত বিধিগুলো বিষয়ে জানেন না। তারা রাষ্ট্রীয় বিধি লংঘন করে দেশের একজন নিরপরাধ নাগরিককে অন্যায়ভাবে পিটিয়ে জখম করেছেন। দেশের আইন অনুযায়ী বনকর্মকর্তারা অপরাধ করেছেন। রাষ্ট্রীয় আইনে এই অপরাধের বিচার ও দন্ডের বিধানও আছে।
খাসিপুঞ্জির করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি ও ‘উৎরাম’
সিলেট বিভাগের আদিবাসী খাসি ভাষায় মহামারী মানে হলো ‘ইয়াপখøাম’। আগে থেকেই খাসিদের ভেতর মহামারী বা বড় অসুখের আগে নিজেদের পুঞ্জি (গ্রাম) বন্ধের রীতি আছে। এসময় পুঞ্জির সকল প্রবেশপথ বহিরাগতদের জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়। পুঞ্জিতে যারা থাকেন তারা নিয়ম মেনে ¯œান সেরে পানজুমে যান এবং ফেরার পর ¯œান করে ঘরে ঢোকেন। নারীরা পুঞ্জির সীমানার ভেতরে পাহাড়ি জংগল থেকে শাকলতা কুড়িয়ে আনেন। মহামারী সামালের এই গ্রামবন্ধ প্রক্রিয়াকে খাসি ভাষায় বলে, ‘খাং খারদেপ ছোনং বাহ ইয়াপখøাম’। সহজে আমরা একে খাসি লকডাউন হিসেবে বুঝতে পারি। বনবিভাগ যখন পানজুমে ঢুকতে চেয়েছিলেন, তখন কিন্তু ফরমি তাদের এই লকডাউন বিষয়ে বিস্তারিত বলেন। এছাড়া এভাবে লকডাউনের বিধিতো সরকারও ঘোষণা করেছে। বরং খাসিরা প্রথম থেকে সরকারের সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে কঠোরতম লকডাউন পালন করে আসছেন। আর বনবিভাগের কর্মকর্তারা গিয়ে সেই স্বাস্থ্যবিধি গায়ের জোরে ভেঙে দিলেন? বনবিভাগ কি আশা করেছিলেন? খাসিরা ভেতরে কোনো বন্যপ্রাণী লুকিয়ে রেখেছেন নাকি বিশাল বিশাল সব গাছ কেটে মজুত করেছেন? বনবিভাগের জানা দরকার বন বাঁচাতে মুরইছড়া পুঞ্জির অনিল ইয়ং ইয়ং আমরণ অনশনে বসেছিলেন, নাহার পুঞ্জির খাসিরা চার হাজার গাছ বাঁচাতে নিজের জীবন আগলে দাঁড়িয়েছিলেন। জোর করে ঢুকে যখন বনবিভাগ কোনো বন-অপরাধ দেখতো পেল না তখন হয়তো তাদের ‘ব্যাটাগিরি’ উসকে ওঠলো। যাবতীয় আইন অমান্য করে তারা নির্মমভাবে ফরমিকে পেটালেন। মহামারি ঠেকাতে রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক বিধি পালন করতে যেয়ে বনবিভাগের হাতে গুরুতর জখম হতে হলো এই নিরীহ যুবককে। খাসিদের কাছে এমনিতেও পানজুম এক পবিত্রস্থল। এখানে নিজেরাই ¯œান করে পরিচ্ছন্ন হয়ে প্রবেশ করেন। কারণ বহিরাগতদের মাধ্যমে পানজুমে উৎরাম নামক এক সংক্রামক ব্যধি ছড়িয়ে পড়ে। এভাবে কত পানজুম নষ্ট হয়ে বসত বদলাতে হয়েছে। এসব না জেনে কিভাবে কেউ রাজকান্দি বা কুরমাতে কাজ করতে যান? কেবল বনবিজ্ঞান নয়, বন এলাকার সামাজিক-সাংস্কৃতিক আচরণ ও বিধিগুলোর প্রতি বনবিভাগকে শ্রদ্ধাশীল হতে হবে।

ঘটনার তদন্ত ও বিচার হোক
৯নং ইসলামপুর ইউনিয়নর চেয়ারম্যান আবদুল হান্নান ঘটনার স্বীকার করে বলেছেন, এভাবে পিটানো বনবিভাগের ঠিক হয়নি। বন এলাকায় বনবিভাগের গুটিকয় কর্মকর্তাদের মাধ্যমে সংগঠিত এমনতর অন্যায়, দুর্নীতি, লুটপাট বন্ধে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গণমাধ্যম খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। কারণ হাতেগোণা দুয়েকজন মো. নজরুল ইসলাম, মো. রাজ্জাক আহমেদ, মো. জহির মিয়া কী মো. ফোরকান মিয়ার অপরাধ ও অপকর্মের জন্য কোনোভাবেই বনবিভাগের মহিমা ও গৌরব ¤øান হতে পারে না। এরকম বিচারহীন অপরাধই বনবিভাগের কাউকে না কাউকে একসময় ‘ওসমান গণি’ বানিয়ে দেয়। তাই এখন থেকেই সাবধান ও সতর্ক হওয়া জরুরি। কোনোভাবেই এই ঘটনাটিকে ধামাচাপা দেওয়া যাবে না। সম্মানিত পরিবেশ-বন ও জলবায়ু বিষয়ক মন্ত্রীর এলাকার একজন নাগরিক বিনা অপরাধে বনবিভাগের হাতে এভাবে নির্মমভাবে নির্যাতিত হতে পারে কি? দ্রæত এই ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করে পাবলিক তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা জরুরি। অবশ্যই দোষীদের বিচার ও দন্ড প্রদান করা জরুরি। যদি নির্যাতিত ফরমি দোষী হয় তবে বনআইনের মাধ্যমে তার বিচার ও দন্ড প্রদানের ব্যবস্থা আছে। কাউকে ধরে এনে হাত-পা বেঁধে পিটিয়ে জখম করার কোনো এখতিয়ার নির্যাতক বনকর্মকর্তাদের রাষ্ট্র দেয়নি। এরজন্য রাষ্ট্রের আইন ও বিচারবিভাগ আছে। এ ঘটনার বিচার না হলে ফরমির মনে বনবিভাগ ও সরকার সম্পর্কে জমা হয়ে রইবে এক প্রশ্নহীন ক্ষোভ আর দূরত্ব। এই দূরত্ব ঘুচিয়ে আনার ভেতর দিয়েই পৃথিবী পুনরুদ্ধারের সত্যিকারের যাত্রা সম্ভব।

লেখক ও গবেষক। ই-মেইল: animistbangla@gmail.com

 

 

 

Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email

Материалы по теме:

অকৃতজ্ঞ সভ্যতা ও দগ্ধ আমাজন বন
পাভেল পার্থ: পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে আমাজন বন। বলা ভাল এক করপোরেট নয়াউদারবাদী দুনিয়া খুন করে চলেছে দুনিয়ার এই বৃহত্তম বর্ষারণ্য। গলে পুড়ে ঝলসে ...
বাজুনি ব্রিং
পাভেল পার্থ : ২০০৪ সনের তেসরা জানুয়ারি। টাঙ্গাইলের মধুপুর শালবনে ইকোপার্ক বিরোধী আন্দোলনের এক মিছিলে গুলি করে বনবিভাগ ও পুলিশ। শহীদ হন পীরেন স্নাল। ...
সিমসাকবো বলসাল ব্রিংনি ব্লাকবা
পাভেল পার্থ : গহীন শাল অরণ্যে হা.বিমার মান্দিদের বসতে এককালে কোনো চু ছিল না। চু মানে মান্দিদের নিজস্ব পানীয়। নানান জাতের জুমধানের ভাত রেঁধে প্রবীণ ...
মধুপুরে বন বিভাগের নির্দয় বাহাদুরি-সমকাল
পাভেল পার্থ : করোনাকালে মধুপুর কি শিরোনাম হতে পারত? যখন দেশ-দুনিয়া দেখল প্রাণ-প্রকৃতির প্রতি প্রবল ভালোবাসা আর দরদ ছাড়া এখানে বাঁচার কোনো পথ নেই। প্রধানমন্ত্রী ...
লাকিংমে চাকমা হত্যার প্রতিবেশ-রাজনীতি
পাভেল পার্থ : কক্সবাজারের টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ শিলখালী গ্রামের চাকমা পাড়ার মেয়ে লাকিংমে চাকমা। ২০২০ সনের ৫ জানুয়ারি আতাউল্লাহর নেতৃত্বে ইয়াছিন, মোহাম্মদ মুসা ...

এক নজরে

জাতীয় বাজেট ২০২১-২২ঃ এবারও আদিবাসীদের হতাশ করেছে

সোহেল হাজং : ‘জীবন-জীবিকার প্রাধান্য দিয়ে সুদৃঢ়/ আগামীর পথে বাংলাদেশ’ এ শ্লোগানকে কেন্দ্র করে গত …

error: Content is protected !!