শিরোনাম
প্রথম পাতা / আদিবাসী / ময়মনসিংহে সংবাদ সম্মেলনে ১১ দফা বাস্তবায়নের দাবি

ময়মনসিংহে সংবাদ সম্মেলনে ১১ দফা বাস্তবায়নের দাবি

আচিক নিউজ ডেস্ক: আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উদযাপন উপলক্ষে ১১ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে ময়মনসিংহে সংবাদ সম্মেলন করেছে আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উদযাপন কমিটি, ময়মনসিংহ।আজ ৮ আগষ্ট, শনিবার, ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে প্রেস নোট পাঠ করে ১১ দফা দাবি বাস্তবায়নের জোর দাবী জানান আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উদযাপন কমিটির মহাসচিব অরন্য ই. চিরান ।
আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উদযাপন কমিটির আহবায়ক ও ট্রাইব্যাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান হিল্লোল নকরেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট এমদাদুল হক মিল্লাত, মহিলা পরিষদের জেলা সভাপতি মুনিরা বেগম অনু, আইনজীবী প্রদীপ কুমার মজুমদার, বাংলাদেশ গারো ছাত্র সংগঠন ময়মনসিংহ মহানগর শাখার সভাপতি বিপু বর্ষ রেমা, আদিবাসী উইমেন্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি ঝুমুর রেমা প্রমুখ । সঞ্চালনায় ছিলেন বাংলাদেশ আদিবাসী আইনজীবী এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এড. দীনেশ দারু।

সংবাদ সন্মেলনে যে ১১ দফা দাবি করা হয় সেগুলো হলো :

১. বাংলাদেশের সংবিধানে আদিবাসীদের “আদিবাসী” হিসেবে সাংবিধানিক স্বীকৃতি প্রদান করতে হবে।
২. আদিবাসীদের জন্য মহান জাতীয় সংসদে ৫% অর্থাৎ ১৫টি সংরক্ষিত আসন বরাদ্দ দিতে হবে।

৩. সমতলের আদিবাসীদের জন্য পৃথক মন্ত্রণালয় গঠনসহ একজন আদিবাসীকে পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্ব প্রদান করতে হবে।
৪. সমতলের আদিবাসীদের ভুমির অধিকার রক্ষার জন্য আদিবাসীদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করে পৃথক ভূমি কমিশন গঠন করতে হবে।
৫. মহান সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে সমতল আদিবাসী নারীদের মনোনয়ন প্রদান করতে হবে।
৬. আইএলও কনভেশন নং ১০৭ এর আলোকে আইন ও বিধিমালা প্রণয়ন পূর্বক তা বাস্তবায়ন করতে হবে।
৭. শিক্ষা ও সরকারি চাকরির সকল স্তরে আদিবাসীদের জন্য ৫% কোটা বরাদ্দ বহাল রাখতে হবে।
৮. আদিবাসী অধ্যূষিত এলাকায় স্থানীয় সরকার (জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদে) ও প্রশাসনের বিভিন্ন কমিটিতে আদিবাসী প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করতে হবে।
৯. আদিবাসীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা বন মামলা ও অন্যান্য হয়রানিমূলক মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করতে হবে এবং ‘বন আইন ২০১৯’ সংশোধনসহ নতুন করে মিথ্যা বন মামলা দায়ের করা থেকে বিরত থাকতে হবে এবং আদিবাসীদের বংশানুক্রমিক স্বত্ব দখলীয় ও সরকারী খাস জমিসমূহের আইনগত স্বীকৃতি প্রদান করতে হবে।
১০. সরকারিভাবে আদিবাসীদের পৃথক আদম শুমারী করে আদিবাসী জনসংখ্যার প্রকৃত তথ্য সংরক্ষণ ও সরবরাহ করতে হবে।
১১. আদিবাসী এলাকায় সরকারী উন্নয়ন প্রকল্প তৈরির পূর্বে আদিবাসীদের সাথে সুস্পষ্ট আলোচনা করে প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হবে এবং বর্তমানে কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত আদিবাসী পরিবারসমূহের জন্য সুনির্দিষ্ট প্রণোদনা প্রদানসহ ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এ ব্যাপারে রোববার জেলা প্রশাসকের কাছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হবে।

– প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Facebook Comments

এক নজরে

মধুপুর বনে বাসন্তীদের হাহাকার-দেশ রুপান্তর

সঞ্জীব দ্রং : রাষ্ট্রযন্ত্র যে তার সাধারণ ও গরিব মানুষের সঙ্গে কী রকম নিষ্ঠুর আচরণ করে, …

error: Content is protected !!