শিরোনাম
প্রথম পাতা / জেলা ভিক্তিক সংবাদ / খাগড়াছড়ি / মাটিরাঙ্গায় শ্রীশ্রী রাধাগিরিধারী মন্দিরে গীতা ও নৈতিক শিক্ষা কেন্দ্র উদ্বোধন

মাটিরাঙ্গায় শ্রীশ্রী রাধাগিরিধারী মন্দিরে গীতা ও নৈতিক শিক্ষা কেন্দ্র উদ্বোধন

দহেন বিকাশ ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি : বিশ্ব মাবতার কল্যাণে কলিহত জীবের দুঃখ থেকে মুক্তি ও শান্তি কামনায় মাঘী পূর্ণিমা তিথিতে খাগড়াছড়ি জেলায় মাটিরাঙ্গা উপজেলা সদর ইউনিয়নে অবস্থিত শ্রীশ্রী রাধাগিরিধারী মন্দিরে শ্রীমদভগবত গীতা পাঠ, ধর্মীয় সংগীত পরিবেশন, গীতা ও নৈতিক শিক্ষা কেন্দ্র উদ্বোধন ও ধর্মীয় আলোচনা সভা মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে তিনদিন ব্যাপী ১৬তম অষ্টপ্রহর মহানামযজ্ঞ ।

শনিবার (০৮ফেব্রুয়ারি ২০২০খ্রি.) বিকালে মন্দির প্রাঙ্গনে মহোৎসব উদযাপন কমিটির সভাপতি সুনীল ময় ত্রিপুরার সভাপতিত্বে ধর্মীয় আলোচনা সভা অনুষ্ঠানে মহান আর্শীবাদক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন (ভারতের) শ্রীশ্রী স্বরুপানন্দ মহারাজ । অনুষ্ঠানে মহান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের অন্যতম সদস্য ও সনাতনী গীতা সংঘের প্রধান উপদেষ্টা খগেশ্বর ত্রিপুরা। তিনি বলেন, সময় ও যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে  আমাদের ধর্মের শিক্ষা অর্জন করতে হবে। কর্ম ও জ্ঞান একে অপরের সম্পর্ক। আর সমাজ পরিবর্তনের জন্য ধর্মীয় অনুশীলনের মাধ্যমে সকলে একতাবদ্ধ হতে হবে।

ধর্মীয় সভায় প্রধান বক্তা বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরষ্কারপ্রাপ্ত বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক ও ত্রিপুরা সনাতনী গীতা সংঘের সভাপতি প্রভাংশু ত্রিপুরা বলেন, বর্তমানে পাঠ্যপুস্তকে হিন্দু ধর্ম সম্পর্কে থাকলেও ত্রিপুরাদের সনাতন ধর্ম সম্পর্কে কোন কিছু উল্লেখ নাই। তিনি আরও বলেন, দেব-দেবীর সম্পর্কে যে সব জ্ঞানকে প্রাথমিক জ্ঞান; চন্ডী ও পুরাণ সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করাকে হাই স্কুলের জ্ঞান; মহাভারত ও রামায়ণ সম্পর্কে যে জ্ঞান তাকেই কলেজ লেভেলের জ্ঞান;বেদ, উপষিদ ও পুরাণ সম্পর্কে যে জ্ঞান তাকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্ঞানের সাথে তুলনা করেন। ১২ বছর যে ব্যক্তি ব্রহ্মচারী হয়ে থাকে তাকে স্বামীজী; ৩৬বছর বা ৩যুগ যে ব্যক্তি ব্রহ্মচারী হয়ে থাকে তাকে পরমহংসদেব বলে তিনি অভিহিত করেছেন। তিনি তার বক্তব্যে আরও বলেন, ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীরা ধর্মকে মানে কিন্তু ধর্মের প্রতি ভক্তি নেই। যেমন: অনেক সময় দেখা যায় যে, স্বরসতী পূজার সময় শুধু ছাত্র-ছাত্রীরা উদ্যোগ নিয়ে করে কিন্তু অভিভাবকদের কোন সক্রিয় ভূমিকা দেখিনি।

ধর্মীয় আলোচনা সভায় উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংক (চট্টগ্রাম অঞ্চল)’র উপ-মহাব্যবস্থাপক দীনময় রোয়াজা, গীতা ও নৈতিক শিক্ষা কেন্দ্র উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সনাতন সমাজ কল্যাণ পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা কমিটির পৃষ্ঠপোষক সজল বরন সেন আর ধর্মীয় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের নেহালপুর নন্দীরহাটস্থ বাসুদেব যোগাশ্রম’র উপাধাক্ষ্য ও ত্রিপুরা সনাতনী গীতা সংঘের সহ-সভাপতি উপেন বিকাশ ত্রিপুরা।

এসময় ধর্মীয় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান ত্রিপন জয় ত্রিপুরা; ত্রিপুরা স্টুডেন্টস্ ফোরাম, বাংলাদেশ, কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি প্রেম কুমার ত্রিপুরা; বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা কমিটির মানিকছড়ি উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক রবীন্দ্র ত্রিপুরা, চেলাছড়া পাড়া অখণ্ডমণ্ডলী মন্দির পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক দিগন্ত বিকাশ ত্রিপুরা, ত্রিপুরা সনাতনী গীতা সংঘের অর্থ সম্পাদক পিন্টু বিকাশ ত্রিপুরা, মহোৎসব উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় কার্বারী সূর্য কিরণ ত্রিপুরা প্রমূখ।

আলোচনা সভা শেষে ত্রিপুরা সনাতনী গীতা সংঘের তত্ত্বাবধান ও সহযোগিতায় অদুল-অনিতা ফাউন্ডেশনের সত্ত্বাধিকারী, বিশিষ্ট সনাতনী চিন্তাবিদ, অদুল কান্তি চৌধুরী ও তাঁর সহধর্মিনী অনিতা চৌধুরীর পক্ষ থেকে প্রায় অর্ধ-শতাধিক শীর্তাতদের মাঝে মীতবস্ত্র, পবিত্র গীতা বই ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করেন।

এসময় অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ত্রিপুরা সনাতনী গীতা সংঘের সাধারণ সম্পাদক অর্পন বিকাশ ত্রিপুরা আর স্বাগত বক্তব্য রাখেন মহোৎসব উদযাপন কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শয়ন বিকাশ ত্রিপুরা।

Facebook Comments

এক নজরে

খাগড়াছড়িতে প্রয়াত ‘সুবর্ণ রোয়াজা প্রান্ত’র শিক্ষা বৃত্তি প্রদান

দহেন বিকাশ ত্রিপুরা: খাগড়াছড়ি জেলা সদর পেরাছড়া ইউনিয়নস্থ পল্টনজয় পাড়ায় শ্রীশ্রী সার্বজনীন সরস্বতী পূজা উপলক্ষে …

error: Content is protected !!