শিরোনাম
প্রথম পাতা / আদিবাসী / নেত্রকোণায় হাজং ভাষায় শিক্ষা কার্যক্রম চালু

নেত্রকোণায় হাজং ভাষায় শিক্ষা কার্যক্রম চালু

আচিক নিউজ ডেস্ক: হাজং জাতিগোষ্ঠীর মাতৃভাষার অবস্থা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।  দেশে প্রায় ১৫ হাজার জনসংখ্যার এ হাজং জাতিগোষ্ঠীর সংস্কৃতি ও হাজং ভাষা আজ বিলুপ্তির পথে।  কাপেং ফাউন্ডেশনের একটি এফজিডি প্রতিবেদনে এমন তথ্য ওঠে আসে।  বেসরকারিভাবে নেত্রকোণা জেলায় হাজং ভাষায় শিশুদের শিক্ষা কার্যক্রম ইতোপূর্বে কিছুটা চালু হলেও এখন অর্থের অভাবে সে কর্মসূচিগুলো বন্ধ রয়েছে।  সরকারিভাবেও প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ে হাজং ভাষায় জাতীয় পাঠক্রম ও শিক্ষা ব্যবস্থা এখনো গ্রহণ করা হয়নি।  এই অবস্থায় হাজংদের জাতীয় প্লাটফর্ম ‘বাংলাদেশ জাতীয় হাজং সংগঠন’ হাজংদের ভাষা, সংস্কৃতি পুনরুজ্জীবিত ও বিকাশের লক্ষে একটি পাইলট প্রকল্প হাতে নিয়েছে । ইউরোপীয়ন ইউনিয়নের সহযোগিতায় ও কাপেং ফাউন্ডেশনের সমন্বয়ে আদিবাসী নেভিগেটর প্রকল্পের আওতায় এ পাইলট প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ জাতীয় হাজং সংগঠন।

নেত্রকোণা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার গোপালপুর, ভবানীপুর, দাহাপাড়া, মেনকী ও লক্ষীপুর এ পাঁচটি হাজং গ্রামে চালু হয়েছে হাজং মাতৃভাষা শিক্ষা কার্যক্রম। এ কার্যক্রমের আওতায় জাতীয় হাজং সংগঠন গত ২৯ ও ৩০ সেপ্টেম্বর ‘হাজংভাষায় বই প্রস্তুত, ব্যবহার ও শিক্ষাদান কৌশল’ সম্পর্কে দুইদিনব্যাপী একটি প্রশিক্ষণ কর্মশালা আয়োজন করে দুর্গাপুর উপজেলার জাতীয় হাজং সংগঠনের কার্যালয়ে।  কর্মশালায় হাজং ভাষা শিক্ষক, সংগঠন ও হাজং ভাষা চর্চা ক্লাবের সদস্যবৃন্দ প্রশিক্ষণে অংশ নেন।  দু’দিনের কর্মশালাটি উদ্বোধন করেন হাজংমাতা রাশিমণি কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মতিলাল হাজং।  আরো উপস্থিত ছিলেন জাতীয় হাজং সংগঠনের সভাপতি আশীষ কুমার হাজং, সাধারণ সম্পাদক পল্টন হাজং, সহ-সভাপতি হরিদাস হাজং, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্বপ্না হাজং, কাপেং ফাউন্ডেশনের প্রজেক্ট কোঅর্ডিনেটর সোহেল হাজং প্রমুখ।  প্রশিক্ষণ শেষে হাজং ভাষা শিক্ষা কেন্দ্রের শিশুদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ প্রদান করা হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Facebook Comments

এক নজরে

ঝিনাইগাতীতে শারদীয় দুর্গোৎসব

আচিক নিউজ ডেস্ক: শেরপুরের ঝিনাইগাতীর শালচুড়াতে চলছে সার্বজনীন শারদীয় দুর্গাপূজা । ঝিনাইগাতী থেকে ৬ কিমি …

error: Content is protected !!